ব্লগিং করে কিভাবে ইনকাম করবেন বাংলা ব্লগিং করে প্রতিমাসে কত টাকা ইনকাম করা সম্ভব দেখুন বিস্তারিত ২০২২

আস্সালামুআলাইকুম বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই আশা করি সবাই ভাল রয়েছেন ইনশাআল্লাহ আমিও খুব ভালোই আছি তাই আজকে আপনাদের সামনে এবং আমাদের ওয়েবসাইটের প্রথম পোস্ট নিয়ে হাজির হলাম আজকে আমরা বিশেষ কয়েকটি বিষয় নিয়ে জানব যেই বিষয়গুলো যারা নতুন অর্থাৎ যারা ব্লগিং করতে চাচ্ছেন এবং কিভাবে অনলাইনে কাজ শুরু করবেন ইত্যাদি, এগুলো নিয়ে আমরা আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করব।

অবশ্যই পুরো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন যেন কোন কিছু বাদ না পড়ে যায় যারা অনলাইনে কাজ শিখতে চাচ্ছেন এবং অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চাচ্ছেন তাদের হয়তো অনলাইন সম্পর্কে খুবই কম পরিমাণে ধারণা রয়েছে যার কারনে আপনাদের অনলাইনে কাজ করতে আগ্রহী খুব বেশি না আজ আমি আপনাদের সাথে এমন কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করব যে বিষয়গুলো জানার পর আশাকরি আপনার অনলাইন সম্পর্কে ভালো ধারণা হয়ে যাবে এবং কাজ করতে আপনার আগ্রহ আগের থেকে অনেকটাই বেড়ে যাবে এই বিষয়গুলো জানার পর এজন্য আপনাকে অবশ্যই পুরোপুরি পড়তে হবে।

আমরা সবাই চাই যেন অনলাইন থেকে খুব সহজেই ইনকাম করতে পারি এবং অনেকেই হয়তো ভাবেন যে কিভাবে খুব সহজেই অনলাইন থেকে ইনকাম করা যায় আপনি যদি অনলাইনে আসেন আপনি কিন্তু সাথে সাথে কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন না এর জন্য আপনাকে আগে অবশ্যই সেই কাজটি ভালোভাবে শিখতে হবে যেন আপনি পরবর্তী সময়ে অর্থাৎ আপনার কাজটি শেখার পর যেন খুব সহজে ইনকাম করতে পারেন অবশ্যই আপনাকে আগে সেই কাজটি শিখতে হবে তাহলেই আপনি পারবেন অনলাইন থেকে খুব সহজে ইনকাম করতে অনেকেই হয়তো মনে করতে পারেন অনলাইন ইনকাম টা মনে হয় খুবই কঠিন এই ধারনাটি একদম ভুল কারণ হচ্ছে যে কোন কাজে আপনাকে আগে পরিশ্রম এবং কাজটি ভালোভাবে শিখতে হবে।

তাহলেই আপনি অনলাইন থেকে খুব সহজে অনলাইন থেকে ইনকাম উপায় বের করতে পারবেন আমরা যদি সাধারণভাবে ও কোন একটি কাজ করি তাহলেও কিন্তু অবশ্যই আমাদেরকে সেই কাজটি আগে ভালোভাবে শিখতে হয় এবং তার পরে কিন্তু আমরা কাজটি অন্য কারো কাছে বিক্রি করতে পারি, যদি আপনি কোন কিছু না শিখেই হঠাৎ করে একটি কাজে ঢুকে যান তাহলে কিন্তু সেখান থেকে আপনি সফলতা অর্জন করতে পারবেন না এবং সে কাজটি যদি সাধারন হয় তাহলেও কিন্তু আপনি তার যথাযথ সম্মান পাবেন না কারণটা হচ্ছে আপনি সেই কাজটি ভালোভাবে জানেন না এবং কিভাবে কি করতে হবে এই বিষয়গুলো আপনার পুরোপুরি জানা নেই।

সেজন্য আপনাকে আগে জানতে হবে অনলাইন ব্লগিং অথবা ইনকাম কিভাবে করতে হয় এই বিষয়গুলো তার আগে আপনাকে আরও কিছু জানতে হবে যেমন ধরুন ওয়েবসাইট অর্থাৎ ব্লগিংয়ের সর্বপ্রথম হচ্ছে ওয়েবসাইট আপনাকে আগে ওয়েবসাইট এর কাজ শিখতে হবে তারপরও কিন্তু আপনি ইনকাম এর চিন্তা করতে পারেন যদি আপনি ওয়েবসাইট সম্পর্কে কিছুই না বোঝেন এবং কিছুই না জানেন তাহলে কিন্তু আপনি অনলাইন ব্লগিং থেকে ইনকাম করতে পারবেন না সর্ব প্রথম ধাপটি হচ্ছে তা হচ্ছে ওয়েবসাইট সবথেকে সহজ ভাবে আপনি যদি অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার একটি ওয়েবসাইট প্রয়োজন হবে কারণ একটি ওয়েবসাইট থেকে মাসে লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করতে পারবেন খুব সহজে।

অন্যান্য কাজগুলো থেকে আপনি খুব সহজেই ওয়েব সাইট এর মাধ্যমে ব্লগিং করে ইনকাম করতে পারবেন হয়তোবা মানুষের ভিডিও ব্লগিং গুলো দেখেছেন অর্থাৎ ইউটিউব এর মধ্যে আপনারা হয়তো বিভিন্ন ধরনের মানুষের ব্লগিং থেকে থাকেন তারা ব্লগ করে তাদেরও কিন্তু বিভিন্ন ধরনের সমস্যা ফেস করতে হয় এবং তারপরে কিন্তু তারা একটি সম্পূর্ণ ব্লগ ভিডিও তৈরি করতে পারে এবং সেটা ইউটিউবে আপলোড করে এর পরিবর্তে তারা ইউটিউব থেকে উপার্জন করতে পারে, খুব সহজে যদি মানুষ একবার অন্যান্য মানুষের কাছে পছন্দনীয় হয়ে ওঠে অর্থাৎ যাকে আমরা বলি ভাইরাল যদি কেউ ভাইরাল হয় তাহলে কিন্তু তার ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রতিমাসে লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করতে পারে এছাড়াও ইউটিউব থেকে ইনকাম করার আরও বিভিন্ন ধরনের উপায় রয়েছে যার মাধ্যমে সেই ব্যক্তি ইনকাম করে খুব সহজে।

বাংলা ব্লগিং করে কি সত্যি ইনকাম করা সম্ভব

অনেকেই হয়তো মনে করেন যে অনলাইনে যদি আমি কাজ করতে চাই তাহলে আমার অনেক পরিমাণে যোগ্যতা থাকতে হবে অর্থাৎ অনেক পরিমাণে পড়াশোনা থাকতে হবে তাহলে আমি হয়তো অনলাইনে সহজে কাজগুলি বুঝতে পারব এবং কাজগুলো করতে পারব তো এজন্য অনেকেই হয়তো অনলাইনে কাজ করতেছেন না কারণ তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা হয়তো খুব বেশি নয় আপনি যদি অনলাইনে কাজ করার জন্য আগ্রহী থাকেন তাহলে আপনি কিন্তু বাংলা ব্লগিং করে প্রতি মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন শুধুমাত্র বাংলা ব্লগিং করে বাংলাদেশ এমন হাজারো তরুণ রয়েছে যারা এর মাধ্যমে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে সে শুধুমাত্র বাংলা ব্লগিং এর মাধ্যমে।

তাহলে আপনি কেন পারবেন না যদি আপনি একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারেন তাহলে অবশ্যই আপনি পারবেন অনলাইনে কাজ করতে কারণ অনলাইনে কাজ করার জন্য আপনার কিন্তু খুব পরিমাণে শিক্ষাগত যোগ্যতা লাগবে না যদি আপনি সাধারণ কিছু বিষয় বুঝতে পারেন যেমন ধরুন আপনি গুগল এডসেন্স নিয়ে কাজ করবেন তাহলে আপনাকে প্রথমে কিছু ইংলিশ জেনে নিতে হবে এবং কিভাবে ওয়েবসাইট এসইও করবেন এই বিষয়গুলো ইংলিশে ধারাবাহিকভাবে ইউটিউবে হয়তো থাকতে পারে এগুলো কোন সমস্যা নয় অনলাইনে কাজ করার জন্য যদি আপনার আগ্রহ থাকে তাহলে আপনি শুধুমাত্র সাধারন বাংলা ব্লগিংয়ের মাধ্যমে অনলাইন থেকে খুব সহজে টাকা ইনকাম করতে পারবেন বাংলা ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করার সেরা একটি মাধ্যম কিন্তু হচ্ছে ওয়েবসাইট।

আপনার যদি সেই রকম দক্ষতাও না থাকে তাহলেও কিন্তু আপনি পারবেন অনলাইন থেকে ইনকাম করতে যেকোনো কাজে মানুষের প্রথমে কিন্তু কোনো দক্ষতাই থাকে না, আগে সেই কাজটি তাকে শিখতে হবে তারপর সেই কাজের উপর আপনার দক্ষতা হবে এবং তারপরেই আপনার ইনকাম করার চিন্তা করতে হবে৷ অনলাইন এর যেকোনো কাজ আপনার কাছে প্রথমে অনকে কঠিন মনে হতে পারে যদি আপনার আগ্রহ থাকে তাহলে কোনো কাজেই কঠিন নয় ব্লগিং করা খুবই সহজ যদি আপনি শুদ্ধ বাংলা লিখতে পারেন তাহলে বাংলা ব্লগিং করেই প্রতিমাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন৷

প্রকার ইনভেস্ট ছাড়াই অনলাইন থেকে কিভাবে ইনকাম করবো ?

অনেকেই হয়তো ভাবেন যে অনলাইন ইনভেস্ট ছাড়া কোনো কাজ নেই তাই অনলাইন কাজ করেন না যদি আপনার আগ্রহ থাকে তাহলে আপনি একদম ফ্রিতে Blogger.com থেকে একটি ফ্রি ওয়েবসাইট বানাতে পারেন এখান থেকে আপনি অনলাইন কাজের যাত্রা শুরু করতে পারেন এখান থেকে লক্ষাধিক মানুষ তাদের নিজেদের জন্য বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট তৈরি করে থাকে এবং এই ওয়েবসাইট থেকে খুব সহজেই কিন্তু ইনকাম করা যায় যদি আপনি একেবারে নতুন হয়ে থাকেন এবং ফ্রিতে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার জন্য বলব প্রথমে আপনি এই blogger.com থেকে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করুন নিজের জন্য এবং এখানে যদি আপনার ওয়েবসাইটে কোন প্রকার সমস্যা হয় তাহলে আপনার কোন প্রকার লস হবে না যেহেতু সবকিছু ফ্রি একটি নষ্ট হলে আপনি আরেকটি তৈরি করতে পারবেন শুধুমাত্র একটি ইমেইল প্রয়োজন।

অনেকেই হয়তো ভাবতে পারেন যে শুধুমাত্র একটি মোবাইল ফোন দিয়ে কি ব্লগিং করা সম্ভব আমি বলব হ্যাঁ আপনি শুধুমাত্র একটি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সুন্দর একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন খুব সহজে আপনার যদি কম্পিউটার , ল্যাপটপ , অথবা পিসি এইগুলো না থাকে তারপরও কিন্তু আপনি চাইলে সাধারন একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন দিয়ে অনলাইনে কাজ করতে পারবেন আমি নিজেও একটি সাধারণ মোবাইল ফোন দিয়ে অনলাইনে কাজ করতেছি এখন পর্যন্ত কোনো সমস্যা হয়নি সকল কাজ আপনি সাধারণ মোবাইল ফোন দিলেই করতে পারবো তো এখন আরেকটি কথা হচ্ছে যেটি হয়তো অনেকে জানতে চাচ্ছেন।

কিভাবে ওয়েবসাইট ডিজাইন করবো এই প্রশ্নটি হয়তো অনেকেরই থাকতে পারে কারণ নতুন অবস্থায় কিন্তু আগে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সেটি কিন্তু ভালোভাবে ডিজাইন করতে হবে তো আপনাকে আগে শিখতে হবে ওয়েবসাইট ডিজাইন করে কিভাবে এবং ওয়েবসাইট ডিজাইন সম্পূর্ণ নির্ভর করে কোডিং এর উপরে যদি আপনি ওয়েবসাইট সম্পর্কে ভাল বোঝেন এবং ডিজাইন কোড গুলো আপনার জানা থাকে তাহলে খুব সহজেই যেকোন ওয়েবসাইট আপনি সুন্দরভাবে ডিজাইন করতে পারবেন যদিও কোডিং গুলো শিখতে অনেক সময় লেগে যায় আরেকটি কথা বলে নিচ্ছি সেটি হচ্ছে আপনি যদি প্রফেশনালভাবে ওয়েব ডিজাইনার হতে চান তাহলে আপনাকে আগে কোডিং গুলো ভালোভাবে শিখতে হবে এর জন্য আপনি ফ্রিতে শিখতে পারেন অথবা টাকা দিয়ে পেইড কোর্স কিনে সেগুলো দেখে শিখতে পারেন ওয়েব ডিজাইনিং।

আপনার কোডিং গুলো সত্যি অনেক দিন সময় লাগতে পারে তো আপনি যদি প্রথম থেকে ইনকাম এর চিন্তা কাজ শুরু করতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমেই সব কোডিং জানতে হবে না আপনি প্রথম এর সাধারন কিছু কোডিং জেনে নিবেন সাধারণ বলতে আমি কি বুঝাতে চাচ্ছি আপনি যদি একটি মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন তাহলে অবশ্যই আপনার আগের মোবাইল ফোন ব্যবহার করা জানতে হবে এবং তারপর আপনি ভালভাবে একটি মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন এবং সকল ধরনের সেটিং বুঝতে পারবেন সেইরকম আপনাকে ওয়েবসাইটের সর্বপ্রথম যে কাজটি HTMl এইচটিএমএল শিখে নিবে পুরোপুরিভাবে শিখতে হবে না প্রথমাবস্থায় ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য।

গুগোল এত সার্চ করেন এইচটিএমএল কোড লিখে তাহলে কিন্তু অনেক ধরনের ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন যেখান থেকে আপনি খুব সহজেই কোডিং শিখতে পারবেন এবং বিশেষ করে আপনি যখন একটি পোস্ট তৈরী করবেন তখন আপনার প্রয়োজন হবে এইচটিএমএল এর বিভিন্ন ধরনের কোড যেমনটা আমি পোষ্টের বিভিন্ন সময় ব্যবহার করে থাকি আপনি এটি খুব অল্প দিনেই ভালোভাবে শিখতে পারবেন খুব বেশি সময় লাগবে না একটি শিখার পর আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন এবং সেখানে থিম আপলোড করবেন অর্থাৎ যদি আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন সেখানে আপনি একটি থিম আপলোড এর মাধ্যমে ওয়েবসাইটটি পুরোপুরিভাবে ডিজাইন সম্পন্ন করতে পারবেন।

ধরুন আপনি একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট তৈরী করলেন এবং আপনি কোন প্রকার ডিজাইন কোডিং জানেন না তাহলে কিভাবে এই ওয়েবসাইটের মতো একটি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন আমাদের এই ওয়েবসাইটটি একটি থিম কাস্টমাইজেশন করা হয়েছে আমাদের এই ওয়েবসাইটটিতে ব্যবহার করা হয়েছে জান্নাহ থিম যার মাধ্যমে আমরা ওয়েবসাইটটি কাস্টমাইজেশন করে আপনাদের সামনে প্রদর্শন করেছি যাতে সবকিছু সুন্দরভাবে বোঝা যায় এবং সৌন্দর্য জেনো দেখা যায়।

যদি আপনি ওয়ার্ডপ্রেস থেকে ওয়েবসাইট তৈরি করেন আপনার যদি আমাদের ওয়েবসাইটের তিনটি প্রয়োজন হয় অবশ্য আমার সাথে কন্টাক করবেন অথবা কমেন্ট বক্সে আপনার ইমেইল এড্রেস দিতে পারেন আমি সেই ইমেইল এড্রেস দিতে এই ওয়েবসাইটের থিম পাঠিয়ে দেবো শুধুমাত্র থিমটি ওয়েবসাইটে আপলোড করে সেটি আপনার নিজের মন মত করে ডিজাইন করে নিবেন অর্থাৎ কাস্টমাইজেশন কাকে বলা হয় সুন্দরভাবে কাস্টমাইজ করে নেবেন তাহলে বোঝা যাবে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য প্রফেশনাল ডিজাইন হয়ে গেছে।

ওয়েবসাইট তৈরি করার পর কি কাজ করতে হবে

উপরে বলে দিয়েছে কিভাবে আপনি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন যদি আপনি ফ্রিতে ওইটা তৈরি করতে চান এর জন্য রয়েছে blogger.com অর্থাৎ এখান থেকে আপনি যে কোন নামে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন আপনাকে একটি সাব-ডোমেইন দেওয়া হবে blogspot.com ধরুন সেখানে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করলেন এবং তারপর সেই ওয়েবসাইট এর সম্পূর্ণ নাম হবে
Example: Techshekho.blogspot.com
যে নামে ওয়েবসাইটটি তৈরি করবেন এরকম ভাবে আসবে এসেছেন টুকুকে বলা হয়েছে সাবডোমেইন।

আর যদি আপনি কিছু টাকা ইনভেস্ট করে অর্থাৎ আপনি যে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনে ওয়েবসাইট তৈরি করেন তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে যে নামটি দেখতে পারতেছেন এইরকম ভাবে আপনার ওয়েবসাইটে নামতে হবে যদি আপনি একেবারে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে বলব আপনি প্রথমে blogger.com থেখে একটি ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিন আর যদি আপনার কিছু টাকা ইনভেস্ট করার মত সামর্থ্য থাকে তাহলে আপনি কম টাকায় 800 থেকে 900 টাকা খরচ হতে পারে এর ভিতর আপনি ডোমেইন এবং হোস্টিং পেয়ে যাবেন ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন ধরনের কোম্পানি রয়েছে যারা খুব কম টাকায় ডোমেইন হোস্টিং দিচ্ছে চাইলে আপনি অন্য দেশের ডোমেইন হোস্টিং নিতে পারেন যেমন: namecheap, 123reg, godaddy আরো বিভিন্ন ধরনের কম্পানি ইত্যাদি।

তো যখন আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলবেন এবং থিম এর মাধ্যমে ডিজাইন ও সম্পূর্ণ পড়বেন তারপর কাজ হচ্ছে আপনি ওয়েবসাইটটিতে কি নিয়ে কাজ করবেন আর আরেকটি কথা সেটি হচ্ছে আপনি যখন ডোমেইন নেমটি ক্রয় করবেন অথবা যখন আপনি ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন করবেন অবশ্যই তখন যে বিষয়টি নিয়ে আপনি কাজ করতে চাচ্ছেন সেই রিলিটিড একটি ডোমেইন বাছাই করে নিবেন তাহলে সেই ডোমেইনটি গুগলে ভালোভাবে রেঙ্ক করবে তো তারপর আপনাকে ভালোভাবে ভাবতে হবে যে আপনি কি বিষয় নিয়ে কাজ করতে চাচ্ছেন আপনার ওয়েবসাইটটিতে যেহেতু আপনি একদম নতুন তার জন্য আপনার মাথায় বিভিন্ন ধরনের বুদ্ধি আসতে পারে কিন্তু আপনি সেই বিষয়গুলো ভালভাবে জানেন না।

কোন অবস্থায় আপনার অনেক ধরনের মাথায় বুদ্ধি আসতে পারে আপনাকে যে টপিকটি বেছে নিতে হবে আপনি যে বিষয়টিতে কিছুটা পারদর্শী অর্থাৎ আপনি যে বিষয়টি সম্পর্কে কিছুটা হলেও জানেন সেই বিষয়টি নিয়ে আপনি ওয়েবসাইটে কাজ করবেন সাধারণভাবে যদি আমি একটি উদাহরণ দেই যেমন ধরুন আমি মোবাইল ফোন সম্পর্কে জানি বিভিন্ন ধরনের মোবাইল ফোনে কি কি রয়েছে এই বিষয়গুলো জানা রয়েছে তাহলে আপনি চাইলে শুধুমাত্র মোবাইল ফোন রিভিউ দিতে পারেন অর্থাৎ মানুষ মোবাইল ফোন কিনার আগে গুগলে সার্চ করে এই ফোনটি কিরকম মোবাইল টির নাম সহ গুগলে সার্চ করে থাকে আপনি বিভিন্ন ধরনের মোবাইল ফোন রিভিউ করতে পারেন আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে।

এটি একটি সহজ মাধ্যম অনলাইনে কাজ করার জন্য সেইরকম আপনার যদি কোন বিষয়ের উপর কিছুটা হলেও ধারনা থাকে এছাড়াও আপনার যে বিষয়টির ওপর ধারণা রয়েছে সেই বিষয়টি নিয়ে রিসার্চ করবেন এর জন্য রয়েছে ইউটিউব গুগোল আরো বিভিন্ন ধরনের সোশ্যাল ওয়েবসাইটগুলো যেগুলোতে আপনি যদি একটু ভালোভাবে রিসার্চ করেন তাহলে কিন্তু আপনি খুব ভালোভাবে একটি আর্টিকেল লেখার জন্য সমস্ত স্টেপ গুলো জেনে নিতে পারবেন ওয়েবসাইটের মেইন হচ্ছে তার আর্টিকেল যদি আপনি বিভিন্ন ধরনের আ্যড থেকে ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার প্রয়োজন হবে ডিজিটাল এবং এর জন্য আপনাকে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হবে এখন আমি কিছু ধারনা দেই।

কিওয়ার্ড কি ? এবং কিওয়ার্ড রিসার্চ কাকে বলে ?

আপনি যেকোন বিষয় নিয়ে কাজ করে না কেন অবশ্যই আপনাকে আগে কীওয়ার্ড রিসার্চ সম্পর্কে জানতে হবে তাহলে আপনি গুগল এবং আরও বিভিন্ন ধরনের সার্চ ইঞ্জিন থেকে খুব ভালো পরিমাণে ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটে আনতে পারবেন অনেকেই হয়তো বিভিন্ন ধরনের পোস্ট দেখে নিজের ওয়েবসাইটে পাবলিশ করেন কিন্তু সেখানে খুব পরিমাণে গুগোল ভিজিটর অথবা বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনগুলো থেকে ভালো পরিমাণে ভিজিটর আনতে পারতেছেন না তাদেরকে যা করতে হবে আপনি যেই টপিকগুলো নিয়ে আপনার ওয়েবসাইটে আর্টিকেলগুলো পাবলিসিটি করতেছেন সে পোস্টগুলোতে ভালোভাবে কিওয়ার্ড দিতে হবে।

ধরুণ আমি একটি পোষ্ট তৈরি করব এবং তার মেইন কি-ওয়ার্ড হচ্ছে ‌কিভাবে মোবাইল ফোন দিয়ে ইনকাম করে ধরুন এটি একটি সাধারণ কিওয়ার্ড এর মাধ্যমে আপনাকে একটি পোস্ট তৈরী করতে হবে এবং এই লেখাটা আপনি বিভিন্ন জায়গায় ব্যবহার করবেন যেন সব জায়গায় ব্যবহার করার পরেও মানুষ খুব সহজে সেই বিষয়টি বুঝতে পারে তাহলে আপনার পোস্ট এর বেশিরভাগ যে উচ্চারণটি ব্যবহার করবেন সেই রিলিটিড গুগলে মানুষ যদি কিছু সার্চ করে তাহলে কিন্তু সেখানে আপনার ওয়েবসাইটটি খুব সহজেই শো যাবে।

এখন যেই টপিক নিয়ে আপনি কাজ করো না কেন অবশ্যই সেই বাক্যটি আপনার আর্টিকেল এর ভিতরে খুব ভালোভাবে ব্যবহার করবেন এছাড়াও কিছু কোডিং রয়েছে যেগুলো ব্যবহার এর মাধ্যমে আপনার পোষ্টটি আরও সুন্দরভাবে তৈরি করতে পারবেন এবং লেখা ছোট বড় করে কিভাবে এর জন্য কিন্তু আলাদা কিছু কোড রয়েছে যে কোন কোন আপনারা যদি এইচটিএমএল কোডিং শিখতে পারেন সেখান থেকে দেখতে পারবেন কিভাবে লেখা সৌন্দর্য করতে হয় তো আপনি অবশ্যই চেষ্টা করবেন যে টপিকে পোস্ট লেখার না কেন অবশ্যই কিওয়ার্ড রিসার্চ করে তারপর বিভিন্ন ধরনের ব্যবহার করার চেষ্টা করবেন যে ওয়ার্ড টি আমি এই পোষ্টে ব্যবহার করি তাহলে এর সাথে ভালোভাবে মিলে যাবে এইরকম ভালো ভালো ওয়ার্ড পোস্টে ব্যবহার করবেন তাহলে আপনার পোস্টটি গুগলে খুব ভালোভাবে রেংক হয়ে যাবে।

ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম শুরু হবে কখন?

তো আপনি কিভাবে ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করবেন এই বিষয়টি সবচেয়ে বেশি আগ্রহী যখন আপনার ওয়েবসাইটের কাজগুলো সম্পন্ন তৈরি হবে অর্থাৎ সম্পূর্ণ কাজ হয়ে যাবে এবং আপনার সমস্ত পোস্ট করা হয়ে যাবে যদি আপনি ভালো ভাবে পোস্ট করেন আপনার ওয়েবসাইটে প্রতিটি পোস্টের ওয়ার্ড যদি 2000 + করতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনি খুব অল্প পোস্টে গুগল এডসেন্স পেয়ে যাবেন এছাড়াও আপনি আরও বিভিন্ন ধরনের আ্যড নিয়ে আপনার ওয়েবসাইটে তা বসিয়ে ইনকাম করতে পারবেন খুব সহজেই।

আমরা সবাই জানি গুগল এডসেন্স হচ্ছে বিশ্বের অন্যতম সেরা একটি এড নেটওয়ার্ক যেখান থেকে আপনি প্রতিমাসে লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করতে পারবেন যদি বলেন যে বাংলা ব্লগিং করে প্রতি মাসে কত টাকা ইনকাম করা সম্ভব এটি নির্ভর করবে পুরোপুরি আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর এর ওপরে এবং ক্লিক এর উপরে আপনার ওয়েবসাইটে যত পরিমাণে এস ষইও থাকবে তত পরিমাণে কিন্তু আপনি গুগোল থেকে ভিজিটর নিতে পারবেন আপনার ওয়েবসাইটের জন্য যদি আপনি গুগল এডসেন্স থেকে ইনকাম করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটে আগে ভালোভাবে এসইও করে নিতে হবে কারণ হচ্ছে গুগল এডসেন্স থেকে ইনকাম করার জন্য অবশ্যই আপনার অর্গানিক ট্রাফিক দরকার এছাড়া কিন্তু ইনকাম করা খুবই কঠিন।

আরেকটি কথা বলে দিচ্ছি তা হচ্ছে আমাদের বাংলাদেশের যত অ্যাড কোম্পানিগুলো তাদের এন্ড গুগোল অ্যাড এ প্রকাশ করে তাদের সিপিসি কিন্তু খুবই কম অর্থাৎ যারা এর আগে গুগল এডসেন্স সম্পর্কে জেনেছেন তারা হয়তো জানেন যে ইনকাম কত হবে তা নির্ভর করে সিপিসি এর উপরে আমাদের বাংলাদেশের সিবিসি খুবই কম এবং ইনকাম খুব কম হয়ে থাকে তবে যদি আপনার ট্রাফিক খুব ভালো পরিমাণে হয়ে থাকে গুগল থেকে অর্থাৎ আপনি যদি অর্গানিক ট্রাফিক নিতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনার প্রচুর পরিমাণে ইনকাম হবে একটি ওয়েবসাইট থেকে আমাদের বাংলাদেশে এমন কিছু ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলো থেকে প্রতিমাসে গুগল এডসেন্স থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করেছে কারণ তাদের ওয়েবসাইটে খুব পরিমাণে এসইও করা হয়েছে।

গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটে সবগুলো কাজ এবং সবগুলোই সাকসেস করাতে হবে তারপর কিন্তু আপনি গুগল এডসেন্স এর জন্য এপ্লাই করবেন এবং 14 দিনের ভিতরে আপনি গুগল অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবেন যদি সবকিছু ঠিকঠাক ভাবে থাকে বেশিরভাগ যে সমস্যাগুলো দেখা যায় তা হচ্ছে কপিরাইটিং কনটেন্ট কপিরাইটিং কনটেন্ট কি এই বিষয় নিয়ে নিচে আমি ছোট করে আলোচনা করতেছি অবশ্য এটি দেখে নিবেন কারণ এর জন্য বেশিরভাগ ওয়েবসাইট গুগল এডসেন্স থেকে তাদের এড গুলো দিচ্ছে না অর্থাৎ ওয়েবসাইটের জন্য এ্যাডসেন্স এপ্লাই করার পর সেই ওয়েবসাইটগুলো রিজেক্ট করে দিচ্ছে।

কপিরাইটিং কনটেন্ট কি ‌?

যারা একদম নতুন শুরু করেছেন অনলাইনে ওয়েবসাইটের কাজ তাদের জন্য বিশেষ একটি কথা আপনারা কোনো কিছু কপি করবেন না অর্থাৎ অনেকেই হয়তো মনে করেন যে এত কষ্ট করে পোষ্ট লিখার কি দরকার আমি যদি অন্য একটি ওয়েবসাইট থেকে তাদের পোস্ট কপি করে আমার ওয়েবসাইটে পেস্ট করে দেই তাহলে তো কাজ হয়ে গেল এই কাজগুলো কখনোই ভুল করে করবেন না তাহলে কিন্তু আপনি কোনোভাবেই অনলাইনে সফলতা অর্জন করতে পারবেন না এই কাজটি বেশিরভাগ মানুষই করে থাকেন যে বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট থেকে তাদের কন্টেন গুলোকে কপি করে নিজের ওয়েবসাইটে পেস্ট করে দেন।

এই কাজ করা থেকে সম্পূর্ণভাবে বিরত থাকুন এতে করে কিন্তু আপনার কোন প্রকার লাভ হবে না বরং আপনার ওয়েবসাইটের বিরুদ্ধে কিন্তু সেই ওয়েবসাইটের মালিক ব্যবস্থা নিতে পারে এতে করে আপনার ওয়েবসাইটটি গুগল থেকে একদম নয় কিন্তু বের করে দিবে তাই অবশ্যই সাবধান হয়ে থাকবেন কোন সময় কারো কনটেন্ট কপি করবেন না আর আরেকটি কথা হচ্ছে যদি আপনি 1000 টি কপি কন্টেন দিয়েও গুগল এ্যাডসেন্স এপ্লাই করেন তাহলে কিন্তু সেখানে আপনি রিজেক্ট করে দিবে কারন গুগল এডসেন্স কখনোই কপি কনটেন্ট বা অন্য কারো কনটেন্ট আপনার ওয়েবসাইটে দেখতে পেলে সেই ওয়েবসাইটটি তাদের এড এর জন্য অনুমোদন করবে না।

ওয়েবসাইটে কাজ করে কিভাবে টাকা তুলব

যদি আপনি শুধুমাত্র ওয়েবসাইটে কাজ করেন তাহলে আপনি টাকা তুলতে পারবেন বিভিন্ন মাধ্যমে তো যদি শুধুমাত্র আপনি গুগল এডসেন্স নিয়ে কাজ করেন তাহলে কিন্তু প্রতি মাসে অনেক টাকা উপার্জন করতে পারবেন একটি ওয়েবসাইট থেকে এবং একটি গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট থেকে আমাদের বাংলাদেশ অনেক লোক রয়েছে যারা গুগল এডসেন্স এর এড নিয়ে তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে প্রতিমাসে অনেক পরিমাণে টাকা ইনকাম করতেছে গুগল এডসেন্স থেকে ইনকাম করার জন্য দুটি উপায় রয়েছে একটি হচ্ছে ওয়েবসাইট এবং আরেকটি হচ্ছে ইউটিউব এবং অ্যাপ থেকে ইনকাম করার জন্য তাদের রয়েছে গুগল এডমোব আমি এরপরে আরো একটি পোস্ট করব এইগুলো সম্পর্কে অবশ্যই সেই পোষ্টটি দেখে নেবেন।

তো যদি মাত্র আপনি গুগল এডসেন্স নিয়ে কাজ করেন তাহলে আপনাকে টাকা তুলতে হবে ব্যাংক এর মাধ্যমে এবং আপনার গুগল এডসেন্স একাউন্টে যদি 100 ডলার হয় তাহলে আপনার একাউন্টে একটি ব্যাংক একাউন্ট অ্যাড করে দেবেন যে কোন ব্যাংক সর্বনিম্ন আপনি 100 ডলার হলে গুগল এডসেন্স থেকে টাকা নিতে পারবেন এবং তারা প্রতি মাসের 20 থেকে 21 তারিখের ভিতরে ইউজারদের টাকা সেন্ড করে দেয় ব্যাংক এর মাধ্যমে এবং আপনাকে অ্যাডসেন্স পাওয়ার পর আরেকটি কাজ করতে হবে সেটি হচ্ছে পিন ভেরিফাইড এডসেন্স আপনাকে একটি চিঠি পাঠাবে সেই চিঠিতে কি করতে এবং সেই কোডটি আপনাকে গুগোল অ্যাডসেন্সে বসাতে হবে তাহলে আপনার এডসেন্স একাউন্ট ভেরিফাইড হয়ে যাবে।

গুগল এডসেন্স একাউন্ট তৈরি করার জন্য আপনার শুধুমাত্র প্রয়োজন হবে একটি ইমেইল এবং পরে যখন আপনি গুগল এডসেন্স একাউন্টে ভেরিফিকেশন করবেন তখন আপনার প্রয়োজন হবে আপনার যাবতীয় ইনফর্মেশন যার মাধ্যমে আপনি লেটার নিতে চাচ্ছেন এবং কিভাবে আপনি ব্যাংক একাউন্ট থেকে টাকা তুলবেন সে জন্য একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট গুগল এডসেন্স একাউন্টে অ্যাড করে নিতে হবে আশাকরি আপনার ওয়েবসাইটের সবকিছু ঠিকঠাক ভাবে থাকলে এবং আপনি যদি খুব ভালোভাবে এসইও করতে পারেন তাহলে শুধুমাত্র একটি বাংলা ব্লগ ওয়েবসাইট থেকে প্রতিমাসে অনেক পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

শেষ কথা
আশাকরি আপনার কাছে আমাদের আজকের পোস্টটি ভালো লেগেছে যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন যেন তারাও জানতে পারে ব্লগিং সম্পর্কে এবং তারাও যেন আগ্রহী হয় অনলাইনে কাজ করার জন্য এছাড়া আপনার যদি কোন প্রকার বুঝতে সমস্যা হয়ে থাকে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত জানিয়ে দেবেন আমরা চেষ্টা করব সেটির যথাযথ উত্তর দেওয়া যেন আপনি বিষয়টি আরো ক্লিয়ার ভাবে বুঝতে পারেন তো সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং আমাদের ওয়েবসাইট প্রতিদিন ভিজিট করবেন ধন্যবাদ সবাইকে।

About Admin

পড়াশোনার পাশাপাশি ব্লগিং করতে পছন্দ করি। এবং অনলাইনে টেকনোলজি সবসময় শেখার চেষ্টা করতেছি। আমি যতোটুকু জানি চেষ্টা করি আমার ওয়েবসাইটে শেয়ার করার জন্য।

View all posts by Admin →

Leave a Reply

Your email address will not be published.